Notice

আমাদের সাইটটি নতুন ভাবে আপডেট করা হয়েছে। এখানে যারা আগের ইউজার ছিলেন দয়া করে নতুন করে রেজিস্ট্রেশন করে আমাদের সাথেই থাকবেন। আর যেকোনো প্রয়োজনে আমাদের সাথে যোগাযোগ করবেন । ধন্যবাদ

Search

Home » Wordpress » যে ভাবে ভাল এবং নিরাপদ হোস্টিং এবং ডোমেইন কিনবেন? *দেখেনিন*

About 2 months ago 76 Views

editor

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম-

♣♣♣♣♣♣♣♣♣♣আস্সালামমু আলাইকুম♠♠♠♠♠♠♠♠♠♠

টিপসরেইনের পক্ষ থেকে সকল ভিজিটর জানাই শুভেচ্ছা
_________________________________

আশাকরি সকলেই ভালো আছেন, আমিও আপনাদের দদোয়াই ভালো আছি,তাই আপনাদের জজন্য নিয়ে এলাম চমৎকার একটা টিউন, চলুন তাহলে,,,,,,

___________________________________

যে ভাবে ভাল এবং নিরাপদ
হোস্টিং এবং ডোমেইন কিনবেন?
যেকোনো ধরনের ওয়েবসাইট
খোলতে হলে সর্বপ্রথম প্রয়োজন হয়
একটি ডোমেইন নেম তারপর প্রয়োজন
হয় ডোমেইনটি হোস্ট করার জন্য ওয়েব
স্পেস। সারা বিশ্বে এবং আমাদের
বাংলাদেশে অসংখ্য প্রতিষ্ঠান
আছে যারা ডোমেইন এবং হোস্টিং
সেবা প্রদান করে থাকে। তবে
ডোমেইন ও হোস্টিং এর ক্ষেত্রে
কিছু বিষয় সম্পর্কে ভালো করে
জেনেশুনে, সঠিক একটি প্রতিষ্ঠান
থেকেই নেয়া ভালো। না হলে
পরবর্তীতে নানা ধরনের সমস্যার
সম্মুখীন হতে হয়। নিচে কতগুলো বিষয়
নিয়ে আলোচনা করা হল,এই বিষয়গুলো
ভালোভাবে বুঝে শুনে নিলে
পরবর্তীতে এ নিয়ে আর কোনো
ঝামেলা পোহাতে হবে না।
ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন:
আপনার কাংখিত ডোমেইন নামটি
যদি ইতিপূর্বে কেউ রেজিস্ট্রেশন
করে ফেলে তাহলে এর সাথে কিছু
একটা যোগ করে দিতে হবে।
ডোমেইনের নাম পছন্দ করতে কোন
প্রতিষ্ঠান কিংবা বিশেষজ্ঞের
কাছে যাওয়ার প্রয়োজন নেই।
ডোমেইন নেম চেক করার জন্য বেশ
কিছু সাইট রয়েছে। পাশাপাশি
প্রতিটি হোস্টিং প্রতিষ্ঠানের
ওয়েব সাইটে ডুকেও আপনি নাম
খালি আছে কিনা চেক করে নিতে
পারেন। আপনার প্রতিষ্ঠানের ধরণ
বুঝে ডোমেইন নেমের এক্সটেনশন
বেছে নেয়া উচিত। যেমন আপনি যদি
কোন কোম্পানির জন্য ওয়েবসাইট
করেন তাহলে শেষে ডট কম বেছে
নিন। কোন অর্গানাইজেশনের
ওয়েবসাইট করতে চাইলে শেষে ডট
ওআরজি বেছে নিন।ইনফরমেশন
ভিত্তিক সাইটের জন্য ডট ইনফো, নেট
ওয়ার্কিংয়ের জন্য ডট নেট, মোবাইল
কোম্পানির জন্য ডট মোবি এবং
ব্যবসায়ের জন্য ডট বিজ ব্যবহার করুন।
এতে আপনার ওয়েব এড্রেসের নাম
দেখেই সাইটের ব্যাপারে একটি স্বচ্ছ
ধারণা পেয়ে যাবেন সবাই।
আন্তর্জাতিকভাবে, জনপ্রিয় টপ
লেভেল ডোমেইন গুলোর বার্ষিক মূল্য
প্রায় ৭ ইউএস ডলার যা বাংলাদেশী
টাকায় রুপান্তর করলে প্রায় ৬০০
টাকার মত হয়। আমাদের দেশের
বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান সমূহ বিভিন্ন মূল্যে
ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করে থাকে।
আর ডট বিডি ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন
সরাসরি বিটিসিএল এর কাছ থেকে
করুন।
কিছু ব্যবসায়ী ৭০০ থেকে ১০০০
টাকায় ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন
করিয়ে থাকে। অনেক হোস্টিং
প্রতিষ্ঠান আছে যাদের কাছ থেকে
হোস্ট কিনলে তারা আপনাকে এক
বছরের জন্য আপনার কাঙ্কিত
ডোমেইনটি একদম বিনামূল্যে
রেজিস্ট্রেশন করে দেবে।আবার
অনেক ব্যবসায়ী বিনামূল্য থেকে শুরু
করে ২০০/৩০০ টাকায়ও ডোমেইন
রেজিস্ট্রেশন করিয়ে থাকে।
সত্যিকার অর্থে ৬০০ টাকার চেয়ে কম
মূল্যে কোন ব্যবসায়ীর পক্ষে ডোমেইন
বিক্রি করে লাভ করা সম্ভব নয়। যদি
কেউ এই ধরনের অফার দিয়ে থাকে
তাহলে বুঝতে হবে হয়তো তারা
মার্কেট ধরার জন্য ভর্তুকি দিচ্ছে নয়ত
এখানে অন্য কোন মার্কেটিং
পলিসি কাজ করছে।
ডিস্ক স্পেস:
আপনাকে স্পেস এর কথা চিন্তা করতে
হবে।হোস্ট কেনার আগে আপনার
ওয়েব সাইটের জন্য কতটুকু স্পেস
লাগবে তা হিসাব করে নিন। আপনি
যদি ব্যক্তিগত ওয়েব সাইট বানাতে
চান যাতে শুধু কয়েকটা পেজ থাকবে
তাহলে ৫০ এমবি স্পেসই যথেষ্ট। আর
যদি ব্যক্তিগত ব্লগ টাইপের ওয়েব সাইট
বানাতে চান তাহলে ২০০-৫০০ এমবি
স্পেসই যথেষ্ট। আর আপনি যদি চিন্তা
করেন ছবি, গান, ভিডিও রাখবেন
তবে আপনাকে বড় ওয়েব স্পেসের
দিকে নজর দিতে হবে। অনেকেই
দেখা যায় ১০০ এমবিতেই যে সাইট
হোস্ট করার জন্য যথেষ্ট সেখানে
কিনে ফেলেন ১-৫০ জিবি। বছর বছর
টাকা দিয়ে যাচ্ছেন কিন্তু ব্যবহার
করছেন মাএ ১০০ এমবি। তাই অযথা
স্পেসের জন্য অতিরিক্ত টাকা না
দিয়ে সবচেয়ে ছোট প্লান থেকে শুরু
করুন। আপনার যদি স্পেস বেশি
প্রয়োজন পড়ে তাহলে পরবর্তী
প্লানে আপগ্রেড করে নিবেন। প্রায়
সব কোম্পানিই আপগ্রেড সুবিধা
দিয়ে থাকে। আনলিমিটেড স্পেসের
ফাঁদে পা দিবেন না। এটা একটা
মার্কেটিং ট্রিকস। কোন
কোম্পানিরই আনলিমিটেড স্পেস
দেয়া সম্ভব না। একবার চিন্তা করুন
তো আপনি মার্কেটে আনলিমিটেড
হার্ডডিস্ক দেখেছেন কি না।
সার্ভারও আমাদের পিসির মতোই।
ব্যান্ডউইথ:
ওয়েবসাইট হোস্টিং করার সময় যে
বিষয়টি ভালোভাবে লক্ষ্য করতে
হবে, তা হলো আপনাকে মাসে কি
পরিমান ব্যান্ডউইথ দেয়া হবে তা।
এখানে ব্যান্ডউইথ বলতে বুঝানো হয়
ইউজাররা যতগুলো পেজ আপনার
ওয়েবসাইট ভিজিট করে, ততগুলো
পেজ, ছবি, গান, ভিডিও অর্থাৎ ওইসব
পেজে যা কিছু আছে সবগুলোই
পাঠকের কম্পিউটারে ডাউনলোড হয়।
সেই ওয়েবসাইট থেকে মাসে কি
পরিমান ডাটা ডাউনলোড করতে
পারবে তার পরিমান। ব্যান্ডউইথ
হিসাব আপনি খুব সহজে করতে
পারবেন। ধরা যাক, আপনার
ওয়েবসাইটিতে প্রতিটি
ওয়েবপেজের টেক্সট সাইজ 3 KB
(কিলোবাইট) এবং গ্রাফিক্স সাইজ 10
KB (কিলোবাইট), প্রতিদিন গড়ে ১০০
জন ভিজিটর গড়ে ৩টি করে পেজ
ভিজিট করে । তবে মোট ব্যান্ডউইথ
দরকার = (3 KB + 10KB)*100*3*30 =
1,17,00KB (কিলোবাইট) = 114.26 MB
(মেগাবাইট), আপনাকে অবশ্যই
আনুপাতিক হিসাবের চেয়ে বেশি
ব্যান্ডউইট কিনতে হবে শুরুতেই । আপনি
জেনে নিবেন ভবিষতে আরো বেশী
ব্যান্ডউইথ কিনতে চাইলে কত মূল্য
পরিশোধ করতে হবে। আজকাল অবশ্য
অনেক ওয়েব হোস্টিং কোম্পানি
আনলিমিটেড ব্যান্ডউইথ দিয়ে
থাকে। সেক্ষেত্রে তাদের
সার্ভারের ম্যাক্সিমাম ব্যান্ডউইথ
ক্যাপাসিটি এবং লোড সম্পর্কে
জেনে নিন।
আপটাইম/SLA গ্যারান্টি:
একটি ওয়েবসাইটের জন্য আপটাইম
বিষয়টি অনেক গুরুত্ব। হোস্টের
সার্ভার যতক্ষন সচল থাকবে, আপনার
ওয়েবসাইটও ততক্ষন সক্রিয় থাকবে।
এটা কেবলমাত্র পাঠকের জন্যই গুরুত্বর্পূণ
নয়, বরং সার্চ ইঞ্জিন
অপটিমাইজেশনেও অনেক গুরুত্ব বহন
করে। পাঠক একবার আপনার
ওয়েবসাইটে এসে যদি দেখে আপনার
ওয়েবসাইট কাজ করছে না, তখন তার
মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হবে এবং সে
ভবিষ্যতে নাও আসতে পারে। ঠিক
তেমনি সার্চ ইঞ্জিনের বট
ইনডেক্সের সময় ওয়েবসাইট ডাউন
থাকলে, সে ফিরে যাবে এবং
আপনি আপনার ওয়েবসাইট ইনডেক্স
হওয়া থেকে বঞ্চিত হবেন।এখন
প্রতিটি হোস্টিং কোম্পানিই ৯৯.৯%
টাইম সক্রিয় থাকার প্রতিশ্রুতি দেয়।
কিন্তু এদের প্রকৃত আপটাইমের হিসেব
পাওয়া সম্ভব নয়। তাই কেনার আগে
গুগলে যে কোম্পানি থেকে কেনার
কথা চিন্তা করছেন সে কোম্পানির
নামের সাথে আপটাইম শব্দটি
লাগিয়ে সার্চ দিন। যেমন- examplehost
uptime লিখে সার্চ দিলে আপনি
examplehost .com এর আপটাইম সম্পর্কে
জানতে পারবেন।আর কোম্পানি যদি
কোন মাসে আপটাইম গ্যারান্টি
রক্ষা না করতে পারে তাহলে সে
জন্য ক্রেডিট প্রদান করে কি না চেক
করে নিতে হবে। কোম্পানির ওয়েব
সাইটে টার্মস অব সার্ভিসেস
লিংকে এ সম্পর্কিত বিস্তারিত
লেখা থাকে।
মানিব্যাক গ্যারান্টি:
মানিব্যাক গ্যারান্টি অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ
বিষয়। অনেক কোম্পানিই আছে যারা
৩০ দিনের মানিব্যাক গ্যারান্টি
দিয়ে থাকে। কেনার আগে নিশ্চিত
হয়ে নিন কোম্পানি মানিব্যাক
গ্যারান্টি দিচ্ছে কিনা।
হোস্টিং ফিচার:
হোস্টিং প্লানগুলোর মধ্যে কোন
গোপন লিমিটেশন থাকলে সেটা
অনেক সময় ভালভাবে উল্লেখ করা
থাকে না। তাই প্লানগুলোর তুলনা
করে আপনার চাহিদার সাথে মিলে
কিনা তা দেখে নিন। আপনি যদি
এএসপি ডট নেটে সাইট বানাতে চান
তাহলে আপনার উন্ডডোজ হোস্টিং
লাগবে। লিনাক্স হোস্টিং এ চলবে
না। আপনার যে যে ফিচার প্রয়োজন
তা তারা দিবে কি না দেখে নিন।
কন্ট্রোল প্যানেল:
ওয়েব সাইট ম্যানেজ করার জন্য
কন্ট্রোল প্যানেল প্রয়োজন। কন্ট্রোল
প্যানেলের সাহায্যে আপনি আপনার
ওয়েব সাইট সহজেই ম্যানেজ করতে
পারেন। ওয়েব হোস্টিং এ সব চেয়ে
সহজ এবং অধিক ফিচার সমৃদ্ধ কন্ট্রোল
প্যানেল হচ্ছে সিপ্যানেল। তাই সবসময়
সিপ্যানেল হোস্টিং নেয়ার
চেস্টা করুন।
সার্ভার লোড:
সাভার ওভার লোড কিনা তা
নিশ্চিত হয়ে নিন। আপনি হোস্টিং
কোম্পানিকে সার্ভারের টোটাল
কোর এবং প্রসেসর সম্পর্কে
জিজ্ঞাসা করুন। যদি সার্ভার কোর
৮টা হয় এবং তাদের সার্ভার লোড ৮
এর উপরে হয় তাহলে সার্ভার
ওভারলোড। এবং ওভারলোড
সার্ভারে সাইট হোস্ট করলে সাইট
লোড হতে অনেক বেশি সময় নেয়। এসব
বিষয় খেয়াল রেখে ডোমেইন এবং
হোস্টিং কিনলে আশাকরি ভাল
মানের হোস্টিং কিনতে পারবেন।
— Bangladesh -এ।

_____________________________________________

আশাকরি বুঝতে পেরেছেন, কোন সমস্যা হলে কমেন্ট জানাবেন। সবসময় টিপসরেইনের সাথেই থাকুন।
★★★Thanks★★★

Leave a Reply

Related Posts